চরশেখর ও দুর্গাপুরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে ২০ জন আহত, ৫০ বাড়িঘর ভাংচুর, আটক ৬

শেয়ার করুন


নিজস্ব প্রতিনিধি।।

ফরিদপুরের বোয়ালমারীতে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়েছে। এতে অর্ধশতাধিক বাড়ি ঘর ভাঙচুর ও ব্যাপক লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় ২০ জন আহত হয়েছে। পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে, এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে।
 উপজেলার শেখর ইউনিয়নের চরশেখর ও দুর্গাপুর গ্রামের মধ্যে শনি ও রবিবার সকালে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও শেখর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ এবং একই ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি রইসুল ইসলাম পলাশ গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। বিরোধের জেরে শনিবার সকালে আবুল কালাম আজাদের লোকজন দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে পলাশ সমর্থক দুর্গাপুর গ্রামের ফরহাদ শেখ, তোকান মিয়া, ওহিদ শেখ, মোস্তফা শেখ, হাসু শেখ, খায়ের শেখ ও বাবলু শেখসহ প্রায় ১৫টি বাড়িঘরে অতর্কিত হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও লুটপাট করে এ সময় ভাঙচুরে বাধা দিলে প্রায় ১৫ জন আহত হয়।  এরই জের ধরে রবিবার সকালে ঘোষণা দিয়ে উভয় গ্রুপের প্রায় ৫শতাধিক সমর্থক  দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।এ সময়ও ব্যাপক ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, ইট-পাটকেল নিক্ষেপের মধ্যদিয়ে সংঘর্ষ চলাকালে নারী-পুরুষ সহ প্রায় ১০ ব্যাক্তি আহত হয় ও অর্ধশতাধিক  বাড়িতে ভাংচুর-লুটপাটের ঘটনা ঘটে। হামলায় গুরুতর আহত বাবলু মিয়া, শিমুল মোল্যা, বিলাশ মিয়া ও মোর্শেদা বেগম সহ মোট ১০ জনকে বোয়ালমারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।সংঘর্ষের খবর পেয়ে বোয়ালমারী থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।  সিনিয়র এএসপি (মধুখালী সার্কেল) আনিসুজ্জামান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। সংঘাতময় এলাকায় বর্তমানে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।
বোয়ালমারী থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ আবুল খায়ের বলেন, ঘটনাস্থল থেকে ৬ জনকে আটক করা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোন পক্ষ থানায় লিখিত অভিযোগ দেয়নি


শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *